Wednesday, May 25, 2016

ওয়ার্নারদের ভরাডুবি রুখতে জেগে উঠতে হল যুবরাজকে । আনন্দবাজার

যেন ঘুমন্ত আগ্নেয়গিরি জাগল। ডেভিড ওয়ার্নার না পারলেও এ বার যুবরাজ সিংহ পারলেন। আইপিএলে তাঁকে এই মূর্তিতে দেখতে চাইছিলেন ভক্তরা। এত দিনে সেই মূর্তিতেই দেখা গেল তাঁকে।
কেকেআরের সামনে সানরাইজার্সের ১৬৩ রানের টার্গেট রাখার পিছনে যুবরাজের অবদান ৩০ বলে ৪৪। রানটা সংখ্যায় যেমন দেখতে, বুধবার তাঁর দলের কাছে এর গুরুত্ব ছিল তার চেয়েও বেশি।

দেশে প্রথম দিন-রাত টেস্ট হয়তো ইডেনে | আনন্দবাজার

সব কিছু ঠিকঠাক চললে আগামী বছর মার্চে ভারতে প্রথম দিন-রাতের টেস্ট হয়তো হবে ইডেনে। বুধবার তেমনই ইঙ্গিত দিলেন সিএবি শীর্ষকর্তারা। সিএবি প্রেসিডেন্ট সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় এ দিন বলেন, ‘‘ভারত-অস্ট্রেলিয়া টেস্ট সিরিজে যদি দিন-রাতের ম্যাচ হয়, তা হলে ইডেনেরই তা পাওয়া উচিত। তবে এই ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে বোর্ড।’’ সিএবি-র বিশ্বস্ত সূত্রে খবর, রবিবার বোর্ডের বিশেষ সাধারণ সভায় নবনির্বাচিত বোর্ড প্রেসিডেন্ট অনুরাগ ঠাকুরের কাছ থেকে নাকি সে রকমই আশ্বাস পেয়েছে সিএবি।
যুগ্মসচিব অভিষেক ডালমিয়া এই ব্যাপারে বলেন, ‘‘রোটেশনের নিয়মে ইডেনের একটা টেস্ট প্রাপ্য। কিন্তু কোন টেস্ট, তা এখনও জানি না। তবে দিন-রাতের টেস্টের সম্ভাবনাই বেশি।’’

উৎসবের দিনে নিজের ভবিষ্যৎ নিয়ে ধোঁয়াশা রাখলেন সঞ্জয় । এবেলা

সকাল থেকেই মোহনবাগান তাঁবুর বেঞ্চে ঠায় বসেছিলেন এক বৃদ্ধা। হাতে ধরা সবুজ-মেরুন পতাকাটা কিছুতেই হাতছাড়া করতে চাইছিলেন না। বৌবাজার থেকে নাতনীর হাত ধরে তাঁবুতে আসা অশীতিপর শান্তি চক্রবর্তীর সঙ্গে সেলফিও তুলতে দেখা গেল হাঁটুর বয়সী সমর্থকদের। ফেডারেশন কাপ জয়ের উৎসবের দিনে কাতসুমি ইউসা, দেবজিৎ মজুমদাররা মিলিয়ে দিলেন কয়েক প্রজন্মের মোহনবাগান সমর্থকদের।

ক্লাব তাঁবুতে ভারতসেরাদের অভিনব সংবর্ধনা | সংবাদ প্রতিদিন

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: শহরের বুকে বছরখানেক আগের ছবিটা এখনও ফ্যাকাসে হয়ে যায়নি৷ বেঙ্গালুরু থেকে আই লিগ চ্যাম্পিয়ন হয়ে ফেরার দিন সবুজ আবিরে শহর ঢেকেছিল৷ বুধবার সেই ছবিরই পুনরাবৃত্তি ঘটল৷ ‘ভারতসেরা’দের অভিনন্দন জানাতে বিমানবন্দরে হাজার হাজার সমর্থক ভিড় জমিয়েছিলেন৷ বিক্রমজিৎ, গ্লেনরা বেরিয়ে আসতেই ‘মোহনবাগান জিন্দাবাদ’ স্লোগানে গলা ফাটালেন তাঁরা৷

এক দশকের মোহন সম্পর্ক শেষ শিল্টনের । অর্ঘ্য বন্দ্যোপাধ্যায় - এইসময়

দশ বছরের দীর্ঘ সম্পর্ক৷ হাসি-কান্না, আনন্দ-দুঃখ৷ অভিমান৷ শিল্টন পাল এবং মোহনবাগান৷ এক দশকের এই সম্পর্ক শেষ হতে চলেছে এ বার৷ বিরাট কিছু পরিবর্তন বা অঘটন না ঘটলে, নতুন মরসুমে আর সবুজ-মেরুন জার্সি গায়ে খেলতে দেখা যাবে না বাগান গোলকিপারকে৷

সাত থেকে সত্তর বাগানের উৎসবে | আনন্দবাজার

ফেড কাপ আসার পর বাগান তাঁবু। বুধবার। ছবি: শঙ্কর নাগ দাস

বউবাজারের শান্তি চক্রবর্তীর বয়স বাহাত্তর বছর। প্রৌঢ়া আদ্যন্ত মোহনবাগান সমর্থক। দীর্ঘ আট বছর পর সবুজ-মেরুনের ফেড কাপ জয়ের আনন্দের শরিক হতে তুমুল ঝড়-বৃষ্টি মাথায় নিয়েও সবুজ-মেরুন পতাকা হাতে হাজির ক্লাব তাঁবুতে।
মির্জাপুর স্ট্রিটের ধীমান ভট্টাচার্যের বয়সও বাহাত্তর পেরিয়েছে। প্রতিবন্ধী মানুষটি ভাল করে হাঁটতে পারেন না। তবু একই লক্ষ্যে বাগানে এলেন সমর্থকদের কাঁধে চেপে।
ক্লাস ওয়ানের সৌমি মুখোপাধ্যায় বাবার হাত ধরে তাঁবুতে এসেছিল উৎসবের শরিক হতে। বাগান কোচ সঞ্জয় সেন ড্রেসিংরুমে নকুড়ের সন্দেশ কেটে তার মুখে তুলে দিতেই মুখে হাইভোল্টেজ হাসি বাটানগরের খুদে সবুজ-মেরুন সমর্থকের মুখে।

ফেড কাপ জিতে বীরের সংবর্ধনা পেল মোহন বাগান | বর্তমান

সোমনাথ বসু : সকাল দশটা থেকেই ভিড় জমছিল দমদম বিমানবন্দরে। বাইক, ম্যাটাডোর, মিনিডোরে করে সমর্থকরা দলে দলে হাজির হচ্ছিলেন। ‘আমাদের সূর্য মেরুন, নাড়ির যোগ সবুজ ঘাসে’র আবহে মোহন বাগান অনুরাগীদের আবেগ যেন চুঁইয়ে চুঁইয়ে পড়ছিল। হাতে পতাকা, মাথায় ফেট্টি, পরণে প্রিয় দলের জার্সি। সঞ্জয় সেন, দেবজিৎ মজুমদারের নামে জয়ধ্বনিতে কান পাতা দায়। বিমানবন্দরের বাতাসের রং তখন সবুজ-মেরুন। মাঝেমধ্যেউ অতি উৎসাহীরা শূন্যে ছড়িয়ে দিলেন আবির। সবমিলিয়ে উৎসবমুখর পরিবেশ। 

আগামী মরশুমেও গার্সিয়া । বর্তমান


নিজস্ব প্রতিনিধি, গুয়াহাটি,২৫ মে: পাঁচ বছরে ট্রফির খরা কাটিয়ে মোহন বাগানে যে পরপর দুই মরশুমে আই লিগ আর ফেড কাপ ঢুকল তার জন্য অনেকটা প্রশংসাই প্রাপ্য ব্রাজিলিয়ান ফিজিক্যাল ট্রেনার গার্সিয়ার। নির্দয় ক্রীড়াসূচির পরও তিনি দলটিকে তরতাজা রেখেছিলেন ফিজিক্যাল ট্রেনিংয়ের মাধ্যমে।

সনি, কাৎসুমির অভাবই ভোগাল, মত প্রাক্তনদের | আজকাল

আজকালের প্রতিবেদন: ট্যাম্পাইন রোভার্সের কাছে হারের ফলে এ এফ সি কাপ থেকে এবারের মতো বিদায় ফেড কাপ চ্যাম্পিয়নদের। সনি, কাৎসুমি না থাকায় মোহনবাগান যে এই ম্যাচে ভুগল, সেটা মেনে নিচ্ছে বাংলার ফুটবল মহল। তবে বাগান শিবির এ এফ সি–র এই ম্যাচকে গুরুত্ব দেয়নি এই তত্ত্ব মানতে নারাজ প্রাক্তনরা। তঁাদের যুক্তি, যদি গুরুত্ব না–ই দিত, তাহলে ১২০ মিনিট কেন লড়াই করল।

‌সি এ বি–র নতুন স্পনসর | আজকাল

আজকালের প্রতিবেদন: দীর্ঘদিন ধরেই সি এ বি–র কোনও স্পনসর ছিল না। সৌরভ গাঙ্গুলি সভাপতির চেয়ারে বসার পরই বদলে গেছে ছবিটা। সি এ বি–তে এখন স্পনসরের হুড়োহুড়ি। ব্যক্তিগত উদ্যোগেই কামাল করে দিচ্ছেন সৌরভ। আই ডি বি আই ফেডারেল লাইফ ইনস্যুরেন্সকে আগেই এনেছিলেন। এবার সি এ বি–র সঙ্গে যুক্ত হল বন্ধন ব্যাঙ্ক, এল ওয়াই এফ স্মার্ট ফোন, ক্যাপ্টেন টি এম টি, রিলায়েন্স এবং পরম্পরা আয়ুর্বেদ।

কোপাতে সেরাটা দেব:‌ মেসি | আজকাল

আজকালের প্রতিবেদন:‌ বার্সিলোনার হয়ে বছরের পর বছর একের পর এক ট্রফি ঢুকেছে তাঁর ঘরে। কিন্তু দেশের হয়ে?‌ না, লিওনেল মেসির ওই ক্যাবিনেট ঢুঁড়লেও মিলবে না আর্জেন্টিনার হয়ে পাওয়া কোনও ট্রফি। সামনেই কোপা আমেরিকা। গতবছর যে টুর্নামেন্টে দাপিয়ে খেললেও, ফাইনালে হারতে হয়েছিল চিলির কাছে। তাই আবার এই খেতাবের শতবর্ষে যে করেই হোক ট্রফিটা জিততে চান মেসি। এবং নীল–সাদা জার্সিই যে খেতাবের যোগ্য দাবিদার, সে কথা জোর গলায় বলে দিয়েছেন।

যারা ডার্বি জিতল, তারা কী পেল: সঞ্জয় | আজকাল

আজকালের প্রতিবেদন:‌ গুয়াহাটি থেকে বিমান ছাড়ার অনেক আগেই কলকাতা বিমানবন্দরে সবুজ মেরুন জনতার ঢেউ। প্রিয় দলের কোচ–ফুটবলারদের নিয়ে হাজার তিনেক সমর্থকদের গর্জনে কান পাতা দায়। বাতাসে উড়ছিল সবুজ–‌মেরুন আবির। সঙ্গে সবুজ–‌মেরুন পতাকা। কেউ এসেছিলেন বাসে, ট্যাক্সিতে, গাড়িতে। কেউ কেউ বাইক, ম্যাটাডোরে। কেউ পায়ে হেঁটে। মিউজিক সিস্টেম সহ। বিমানবন্দর চত্বর জুড়ে লাউডস্পিকারে ভেসেছে গান— আমাদের সূর্য মেরুন, নাড়ীর যোগ সবুজ ঘাসে....। সবুজ মেরুন সবুজ মেরুন, পালতোলা নৌকা ছুটছে দারুন....। সময় যত গড়িয়েছে বেড়েছে ভিড়।